ঢাকায় আমার উবার ব্যবহারের অভিজ্ঞতা

Uber বা উবার এখন বাংলাদেশের ঢাকায়। এপস ভিত্তিক এই ট্যক্সি সার্ভিস ঢাকায় চালু হবার পরেই টক অফ দা কমিউনিটি হয়ে গিয়েছে।

ঢাকায় যে সকল ট্যাক্সি এবং সিএনজি চলছে তা জনসাধারনের চাহিদার তুলনায় সংখ্যায় অপ্রতুল। তার উপর আছে পিক সময়ে অতিরিক্ত ভাড়া দাবি করা কিংবা পছন্দসই জায়গা না হলে সার্ভিস না দেয়া।

ঠিক এই সময়ে উবারের আগমন আমাদের জন্য স্বস্তির মত। উবার বিশ্বের অনেক দেশেই সাফল্যের সাথে ট্যাক্সি সার্ভিস দিয়ে আসছে। বাংলাদেশের ঢাকা তাদের নতুন সংযোজন।

উবার ইন বাংলাদেশ

উবার কি ভাবে সার্ভিস দেয়?

গতানুগতিক ট্যাক্সি সার্ভিসের থেকে উবার একটু ভিন্ন ধরনের। উবারের সেবা পেতে হলে আপনাকে তাদের অ্যাপ ইন্সটল করতে হবে। এই এপটি এন্ড্রয়েড, উইন্ডোজ অপারেটিং সিস্টেম এবং IOS সবার জন্য বিদ্যমান। উবারের সাইট (uber.com) বা প্লে-স্টোর থেকে সরাসরি নামিয়ে আপনার মোবাইলে ইন্সটল করতে হবে।

এরপর রেজিস্ট্রেশন করুন, ব্যস হয়ে গেল।

সার্ভিস নেয়ার জন্য এপ থেকে আপনার লোকেশন সিলেক্ট করে দিন এবং ডেস্টিনেশন জানান।

এরপর উবারের জন্য রিকোয়েস্ট সেন্ড করুন।

উবার আপনার রিকোয়েস্ট কাছাকাছি থাকা উবার ট্যাক্সি কে পাঠিয়ে দেবে এবং ড্রাইভার আপনার সাথে যোগাযোগ করে আপনার পিক আপ পয়েন্ট থেকে আপনাকে তুলে নেবে।

অবশ্যই আপনার মোবাইলের GPS অন করে রাখতে হবে।

আমার অভিজ্ঞতা

আমি প্রথম যেদিন উবারের জন্য রিকোয়েস্ট করি সেদিন আমি সার্ভিস পাইনি। আমি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসি থেকে রিকোয়েস্ট সেন্ড করেছিলাম। কাছাকাছি উবার ছিল তেঁজগাও এলাকায়। কিন্তু ড্রাইভার আমাকে ফোন করে জানায় রাস্তায় অনেক জ্যাম আসতে সময় লাগবে, “রিকোয়েস্ট ক্যান্সেল করে দেন।” কিছু করার নাই বিধায় আমি তাই করলাম এবং এপ এ নটিফিকেশন দিয়ে দিলাম “Driver Requested to Cancel” । ETA ছিল ৩৭ মিনিট এর মত।

গত ১১ ডিসেম্বর ২০১৬ তারিখে আমি আবার একই জায়গা থেকে রিকোয়েস্ট সেন্ড করি গাড়ির জন্য। এবার সায়েন্সল্যাব থেকে ড্রাইভার জানালেন তিনি ফ্রি আছেন এবং আসছেন। মাত্র ১০ মিনিটের মাথায় গাড়ি চলে আসল। আমার গন্তব্য ছিল রামপুরার দিকে। আমি যাবার পথে আমার বউকেও অফিস থেকে তুলে নিলাম, যদিও উবারের ড্রাইভার জানিয়েছিলেন তাদের ওয়েট করার কোন সিস্টেম নাই!

আমার প্রথম উবার ব্যবহারের অভিজ্ঞতায় আমি খুশি। গাড়ি এবং ড্রাইভার দুটোই ভাল। সাধারনত উবারের গাড়ি ব্যক্তি মালিকানাধিন হওয়াতে গাড়ির কন্ডিশন ভালো থাকে। আমি ভ্রমন করেছিলাম টয়োটা করোলা গাড়িতে।

যেই দূরত্ব সিএনজিতে যেতে আমার ২০০ টাকার মত খরচ হত সেখানে আমার ২৮০ টাকা ভাড়া লেগেছে। ভাড়া কিছুটা বেশি হলেও গাড়ি এবং তার সার্ভিসে আমি বেশ খুশি। আপনাকে প্রথমে মাথায় রাখতে হবে এটি সিএনজি না এবং আপনি একটি এসি গাড়ি ব্যবহার করছেন আপনার যাতায়তের জন্য।

উবার আপনার রাইড শেষ হবার পর পর আপনার ইমেইলে উপরের মত একটি রিসিপ্ট পাঠিয়ে দেবে। আপনার মোবাইল এপ থেকেও আপনি রাইডের ডিটেইল দেখতে পারবেন। অন্যন্য দেশে ক্রেডিট কার্ডের মাধ্যমে পেমেন্ট করার অপশন থাকলেও আমাদের এখানে তা এখনো চালু হয়নি।

আপনি জানেন কি এই লিঙ্ক থেকে উবারে রেজিস্ট্রার করলে আপনি ২৫০টাকা মূল্যের রাইড ফ্রি তে পাবেনঃ https://www.uber.com/invite/delwarjue

উবারের গাড়ির সংখ্যা আমাদের এখানে এখনো অনেক কম। যতই গাড়ির পরিমান বাড়বে সার্ভিস ততই এভেইলেবল হবে। উবারের মত মাদের এখানে যেই স্টার্টাপটি আছে তা হল Chalo । এখন উবারের কারনে মার্কেটে প্রতিযোগিতা বাড়বে। এই সুস্থ প্রতিযোগিতায় সার্ভিসের মান আরো ভালো হবে বলে আশা রাখি।

সবথেকে বড় কথা হল ট্যাক্সি সার্ভিস নিয়ে যে মনপলি ব্যবসা চলছে আমাদের এখানে তা বন্ধ হবে।

বাংলাদেশে উবারের সোশাল মিডিয়া ফলোয়ারের বেশিরভাগই মনে করেন সরকারে উচিত উবার যাতে ঠিক মত কাজ করতে পারে সে ব্যবস্থা করা। উবারকে বন্ধ করার যেকোন চেষ্টাই ভুল হবে। আর উবারের উচিত সারাদেশেই তাদের সার্ভিস প্রসার করা।

যদিও একথা স্বীকার করতে হবে, উবার সার্ভিস পৃথিবীর অনেক দেশেই চ্যলেঞ্জের সম্মুখীন। সাধারন ট্যাক্সি ড্রাইভার রা উবার কে “Pirate Taxi” নামে ডাকেন  🙂 ।

নিরাপত্তা একটা ইস্যু হতে পারে সরকারের জন্য। সেক্ষেত্রে নতুন নীতিমালা প্রনয়ন করতে হবে উবারের জন্য। তবে বাংলাদেশের প্রেক্ষিতে বলা যায়, উবার আমাদের সিএনজি থেকে অনেক বেটার সার্ভিস হবে।

Save

2 Comments
  1. September 19, 2017
    • September 20, 2017

Leave a Reply